সরকারি কাজে বাধা, হত্যারচেষ্টা ও শারীরিক লাঞ্ছনার অভিযোগ এনে আমতলী থানায় “ইউএনও”র মামলা

  •  
  •  
  •  
  •  

বরগুনা জেলা প্রতিনিধি:-
বরগুনার আমতলী পৌর যুবলীগের সভাপতি ও জেলা পরিষদ সদস্য আইনজীবী আরিফুল হাসান আরিফসহ তিনজনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত আরও ১২ জনকে আসামি করে মামলা করা হয়েছে। রোববার (৯ আগস্ট) বিকেলে আমতলী থানায় সরকারি কাজে বাধা, হত্যাচেষ্টা ও শারীরিক লাঞ্ছনার অভিযোগ এনে মামলাটি করেছেন আমতলী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মনিরা পারভীন।
মামলায় আরিফ ও তার সহকারী রায়হানকে গ্রেফতারের পর আদালতে হাজির করা হলে সন্ধ্যায় দুজনকেই কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন আমতলী সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত। এ নিয়ে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেন স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা। জেলা আইনজীবী সমিতি এ ঘটনার প্রতিবাদ জানিয়ে আরিফের মুক্তি দাবি করেছে।
এছাড়া এ মামলায় ঢাকা আমতলী রুটে চলাচলরত এম ভি সুন্দরবন-০৭ লঞ্চের সুপারভাইজার মো. মইনুলসহ (৪২) অজ্ঞাত আরও ১২ জনকে আসামি করা হয়েছে।
মামলার এজাহারে ইউএনও মনিরা পারভীন অভিযোগ করেন, শনিবার (৮ আগস্ট) দুপুর দেড়টার দিকে সাধারণ যাত্রীদের মাঝে মাস্ক বিতরণের পাশাপাশি লঞ্চে যাতে অতিরিক্ত যাত্রী পরিবহন না হয় সে বিষয়ে সরকারি দায়িত্বপালন করতে আমতলী লঞ্চঘাটে যান তিনি। এ সময় তিনি আমতলী থেকে ঢাকাগামী সুন্দরবন-০৭ লঞ্চে ধারণক্ষমতার চারগুণ বেশি যাত্রীবোঝাই দেখতে পান। সঙ্গে সঙ্গে তিনি আর কোনো যাত্রী লঞ্চে না উঠিয়ে লঞ্চ ছেড়ে দেয়ার জন্য লঞ্চের সুপারভাইজার মো. মইনুলকে নির্দেশ দেন। সুপারভাইজার মইনুল তার নির্দেশ অমান্য করে লঞ্চে যাত্রী ওঠাতে থাকেন এবং কেবিনের যাত্রী রয়ে গেছে বলে অপেক্ষা করেন।


  •  
  •  
  •  
  •